স্ত্রী-সন্তান ছাড়া আমি কিভাবে বাঁচব

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৭২
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৯ জুন, ২০২১, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন

ডেস্ক রিপোর্টঃ
‘আমার বাবা আর বা-ব্বা, বা-ব্বা বলে ডাকবে না’ বলেই কান্নায় ভেঙে পড়ছিলেন মগবাজারে বিস্ফোরণের ঘটনায় ৯ মাসের শিশু সন্তান হারানো সুজন। বিস্ফোরণে ঘটনায় তার ৯ মাসের শিশু সুবহানা ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। আর স্ত্রী জান্নাতকে (২৩) মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে এলে তিনিও মারা যান। ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে দিশেহারা সুজনের কান্না যেন থামানো শক্তি নেই কারও।

কান্না জড়িত কণ্ঠে সুজন বলেন, আমার সব শেষ হয়ে গেল, কি নিয়ে আমি বাঁচব বলতে পারেন? আমার বাঁচার মতো তো কিছু রইল না। আমি কী অন্যায় করেছি যে এভাবে শাস্তি পেতে হবে! আমার ছোট শিশুর কী দোষ ছিল? কীভাবে কী হলো কিছুই বুঝতে পারলাম না। আমার তো বাঁচার মতো কিছু রইল না। সকালে বাসা থেকে বের হওয়ার সময় আমার সোনা মনি আমার সঙ্গে খেলা করেছে। সবে মাত্র কথা শিখতে শুরু করছে। আমার বাবা আমাকে বা-ব্বা, বা-ব্বা বলে ডাকতে শিখেছে। আর কখনও আমাকে বাবা বলে ডাকবে না।

সুজন আরও বলেন, আমি রমনা ফার্মেসিতে চাকরি করি। আমার ছোট শ্যালক রাব্বি আমাদের বাসায় বেড়াতে এসেছে। সন্ধ্যায় মগবাজার শর্মা হাউজে গিয়েছে তারা। আমার স্ত্রী জান্নাতের আত্মীয়রা সেখানে চাকরি করে, তাদের সঙ্গে দেখা করতে গেছিল। হঠাৎ বিস্ফোরণে আমার জীবনের সব কিছু ওলট-পালট করে দিয়েছে। আমার বাচ্চা ও স্ত্রী মারা গেছে। শ্যালক রাব্বি কোথায় তাও জানি না। কী আর রইল আমার বেঁচে থাকার সম্বল?


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
এক ক্লিকে বিভাগের খবর